World leaders want corona ‘vaccine’ for free

The novel coronavirus has caused a catastrophe all over the world. In the meantime, the virus has killed about three lakh people around the world. About 45 lakh people have been affected. However, no drug or antidote for coronavirus-related disease Kavid-19 has been discovered so far. Scientists are working to develop a drug or vaccine. Haven’t seen the face of success yet.

LIKE OUR FACEBOOK PAGE

But once the vaccine is discovered, will the epidemic stop? If the new coronavirus eventually turns into an influenza-like virus, will the discovery of a vaccine solve all the problems? Scientists say it will not be so easy. Then 80 percent of the world’s population, or 5.5 billion people, will have to be vaccinated to boost their immunity. Without it, it will not be possible to stop the virus.

করোনার ‘ভ্যাকসিন’ সবার জন্য বিনামূল্যে চান বিশ্বনেতারা

 
করোনার 'ভ্যাকসিন' সবার জন্য বিনামূল্যে চান বিশ্বনেতারা
 

বিশ্বজুড়ে প্রলয় সৃষ্টি করেছে আণুবীক্ষণিক জীব নভেল করোনাভাইরাস। এরই মধ্যে ভাইরাসের বিষাক্ত ছোবলে বিশ্বজুড়ে প্রায় তিন লাখ মানুষের প্রাণহানী ঘটেছে। আক্রান্ত হয়েছে প্রায় ৪৫ লাখ মানুষ। অথচ এখনো পর্যন্ত করোনাভাইরাসজনিত রোগ কভিড-১৯ এর কোনো ওষুধ বা প্রতিষেধক আবিষ্কৃত হয়নি। বিজ্ঞানীরা উঠেপড়ে লেগেছেন একটা ওষুধ বা ভ্যাকসিন তৈরিতে। এখনো সফলতার মুখ দেখেননি।

তবে ভ্যাকসিন আবিষ্কার হলেই কি করোনা মহামারি থেমে যাবে? নতুন করোনাভাইরাস যদি ইনফ্লুয়েঞ্জার মতো ভাইরাসে পরিণত হয় শেষ পর্যন্ত, তাহলে টিকা আবিষ্কার হলেই কী সব সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে? বিজ্ঞানীরা বলছেন, অতটা সহজ হবে না। তখন বিশ্বের ৭০ শতাংশ জনসংখ্যা বা সাড়ে পাঁচশ’ কোটি মানুষকে হার্ড ইমিউনিটি বাড়ানোর জন্য টিকা দিতে হবে। এ ছাড়া ভাইরাস ঠেকানো সম্ভব হবে না।

আবার টিকা আবিষ্কার হলেও যে তা সব দেশ সমানভাবে তা ব্যবহার করতে পারবে তারও কোনো নিশ্চয়তা নেই। উগ্র জাতীয়তাবাদী আবেশের জেরে টিকা উৎপাদনকারী ধনী দেশগুলো তো তখন দরিদ্র দেশগুলোর দিকে নজর নাও দিতে পারে।

তবে বিজ্ঞানীরা যদি সত্যিই কভিড-১৯ এর কার্যকরী কোনো ভ্যাকসিন বা চিকিৎসা আবিষ্কার করতে সক্ষম হয় তাহলে সেটা বিশ্বের সব মানুষের জন্য ‘ফ্রি’ হওয়া উচিত বলে মত দিয়েছেন বিশ্বের বর্তমান ও অতীত অনেক নেতা।

দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট সিরিল রামাফোসা, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান, সেনেগালের প্রেসিডেন্ট ম্যাকি স্যাল, ঘানার প্রেসিডেন্ট নানা আকুফো-আদোর-সহ ১৪০ জনের বেশি সাবেক ও বর্তমান রাষ্ট্রনেতার স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে বৃহস্পতিবার এ আহ্বান জানানো হয়েছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি।

চিঠিতে বলা হয়েছে, ভ্যাকসিন জাতিগুলোর মধ্যে ভাগাভাগি না করলে কোনো ভ্যাকসিনই করোনাভাইরাস বিতাড়িত করতে পারবে না।

আগামী সপ্তাহে জাতিসংঘের আওতাধীন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নীতি নির্ধারক প্রতিষ্ঠান ওয়ার্ল্ড হেলথ অ্যাসেম্বলির (ডব্লিউএইচএ) বার্ষিক সভার আগে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন প্রসঙ্গে এমন খোলা চিঠি প্রকাশ করলেন বিশ্ব নেতৃবৃন্দ।

তাতে বলা হয়েছে, ‘নিরাপদ ও কার্যকরী কোনো ভ্যাকসিন পাওয়া গেলে তা বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে দেওয়ার নিশ্চয়তা দানে সরকারগুলো এবং আন্তর্জাতিক অংশীদারদের অবশ্যই ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। দ্রুত, বেশি করে উৎপাদন করতে হবে। বিনামূল্যে সব দেশে সবার জন্য এটা সহজলভ্য করতে হবে। কভিড-১৯ সংক্রান্ত সব ধরনের চিকিৎসা, ডায়াগনস্টিক ও অন্যান্য প্রযুক্তি ব্যবহারের ক্ষেত্রেও একই নিয়ম করতে হবে।’

সেনেগালের বর্তমান প্রেসিডেন্ট ম্যাকি স্যাল, ঘানার বর্তমান প্রেসিডেন্ট নানা আকুফো-আদোর’ও সই রয়েছে ওই চিঠিতে।

সাবেক প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীদের মধ্যে রয়েছেন পাকিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট শওকত আজিজ, নেদারল্যান্ডসের সাবেক প্রেসিডেন্ট জান পিটার বালকেনেন্দে, পর্তুগালের সাবেক প্রেসিডেন্ট হোসে মানুয়েল বারোসো, যুক্তরাজ্যের সাবেক প্রধানমন্ত্রী গর্ডন ব্রাউন, নিউজিল্যান্ডের সাবেক প্রধানমন্ত্রী হেলেন ক্লার্ক, স্পেনের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ফিলিপ গঞ্জালেস।

নিয়মিত চাকরির আপডেট পেতে আমাদের গ্রুপে জয়েন করুন

রয়েছেন নোবেল জয়ী লাইবেরিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট এলেন জনসন সার্লিফ, পোল্যান্ডের সাবেক প্রেসিডেন্ট আলেকজান্ডার কাওয়াসনিয়স্কি, আয়ারল্যান্ডের সাবেক প্রেসিডেন্ট ম্যারি ম্যাকঅ্যালিসে, নাইজেরিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট ওলুসেগান অবাসানসো, নোবেল পুরস্কার জয়ী কলোম্বিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট হুয়ান মানুয়েল সান্তোস প্রমুখ।

ফ্রান্সের ফার্মাসিউটিক্যাল জায়ান্ট কম্পানি সানোফি করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন তৈরি করেছে এবং যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম চালান পাঠানোর জন্য মজুত করা হচ্ছে বলে সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হওয়ার প্রাক্কালে ভ্যাকসিন নিয়ে বিশ্ব নেতৃবৃন্দের এই আহ্বান আসলো।

সূত্র- হিন্দুস্তান টাইমস।

Check Also

Corona’s second push is not a holiday or a lockdown

Even if the incidence of corona increases in the coming winter, the country will not …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *