Prime Minister’s video conference started with 4 districts

He started the video conference at the Prime Minister’s Government House Ganabhaban on Thursday (April 7) at 5 pm. The Prime Minister is giving special instructions to the officers in the video message. The Prime Minister has joined the Dhaka Conference, Dhaka, Narayanganj, Munshiganj, Narsingdi, Faridpur, Rajbari, Shariatpur, Madaripur and Gopalganj districts

LIKE OUR FACEBOOK PAGE

লাইভে এসে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা

 লাইভে এসে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা

 

 লাইভে এসে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা দেশজুড়ে চলতি করোনাভাইরাস মহামারীর মাঝে ভয়াবহ ঘটনা ঘটে গেল ফেনীতে। ফেসবুক লাইভে এসে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা করেছেন স্বামী। এ ঘটনায় নিহত গৃহবধূর স্বামী ওবায়দুল হক টুটুলকে (৩২) আটক করেছে পুলিশ। আজ ১৫ এপ্রিল বুধবার দুপুরে ফেনী পৌরসভার উত্তর বারাহীপুর ভূঁইয়া বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। নিহত গৃহবধূর নাম তাহমিনা আক্তার। 

 

গোলাম মাওলা ভূঁইয়ার ছেলে ওবায়দুল হক টুটুল নামের ওই ব্যক্তি ঢাকার একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকুরি করেন। পাঁচ বছর আগে কুমিল্লার গুণবতী এলাকার আকদিয়া গ্রামের সাহাবুদ্দিনের মেয়ে তাহমিনা আক্তারের সঙ্গে টুটুলের প্রেমের বিয়ে হয়। তাদের ঘরে ১৮ মাসের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। টুটুল লাইভে এসে বলেন ‘প্রিয় দেশবাসী, আমাকে ক্ষমা করে দেবেন। আজকে আমার কারণে আমার পরিবার ধ্বংস। যার কারণে ধ্বংস আজকে তাকে আমি এ মুহূর্তে ধ্বংস করে দিলাম। আমি চেষ্টা করেছি। অনেক চেষ্টা করছি। পারিনি।’

 

খুনি টুটুল।

তিনি বলেন, ‘আল্লাহর ওয়াস্তে সবাই আমাকে মাফ করে দেবেন। আমার এতিম মেয়েটার খেয়াল রাখবেন। আমার ভাই-বোনের খেয়াল রাখবেন। আমার পরিবার ভাইবোনের কোনো দোষ নেই। অন্য কেউ এটাতে সম্পৃক্ত নয়। আমি সম্পূর্ণ দায়ী আমার আজকের এ ঘটনার জন্য। প্লিজ সবার কাছে আমার একটাই অনুরোধ আমার ভিডিওটা ভাইরাল করেন।’

ভিডিওতে রক্তে রঞ্জিত গৃহবধূ তাহমিনার মরদেহ দেখা যায়। কিন্তু কেন এই হত্যাকাণ্ড? পুলিশ জানিয়েছেন,  বিয়ের পর থেকে আর্থিক অসচ্ছলতা নিয়ে তাদের পরিবারের মাঝে প্রায়ই ঝগড়া হচ্ছিল। এরইমধ্যে টুটুল শ্বশুরবাড়ি থেকে বেশ কিছু টাকাও নেয়। একপর্যায়ে আরও টাকা চাইলে তাহমিনার পরিবার অস্বীকৃতি জানায়। এরপরই আজ দুপুরে ফেসবুক লাইভে এসে টুটুল তাহমিনাকে দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। পরে টুটুল নিজেই পুলিশকে ফোন দিলে পুলিশ এসে ঘটনাস্থল থেকে তাকে আটক করে।

অন্যদিকে টুটুলের পরিবারের দাবি, তাহমিনা আক্তারের সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক থাকায় টুটুল উত্তেজিত হয়ে তার স্ত্রীকে হত্যা করে। পুলিশ প্রাথমিকভাবে এটাকে পারিবারিক কলহের পরিণতি হিসেবে ধারণা করছে। তারপরেও অধিকতর তদন্ত শুরু হয়েছে। তাহমিনার মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ফেনীর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

Check Also

Government has not taken any decision to hold HSC exams’

HSC and equivalent examinations were supposed to start from April 1. Due to the Corona …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *