In Pirojpur in all 6 of the seven upazilas Karona Shanak

In Indurkani upazila of Pirojpur, for the first time, three corona patients including mother and daughter have been identified. At present, only six out of seven upazilas of the district are infected with corona. The mother and daughter of the three victims of the Indurkani attack on Friday (May 15th) night recently returned from Dhaka and another youth from Narayanganj. Last Tuesday, samples were collected from their bodies and sent to Barisal for testing.

LIKE OUR FACEBOOK PAGE

পিরোজপুরে সাত উপজেলার ৬টিতেই করোনা শনাক্ত

পিরোজপুরে সাত উপজেলার ৬টিতেই করোনা শনাক্ত
পিরোজপুরের ইন্দুরকানী উপজেলায় প্রথমবারের মত মা ও মেয়েসহ তিনজন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ায়, বর্তমানে জেলার সাতটি উপজেলার মধ্যে ছয়টি উপজেলাই করোনা আক্রান্ত হয়েছে।

শুক্রবার (১৫ই মে) রাতে ইন্দুরকানীতে আক্রান্ত তিনজনের মধ্যে মা ও মেয়ে সম্প্রতি ঢাকা থেকে এবং অন্য আরেক যুবক নারায়ণগঞ্জ থেকে ফিরেছেন। গত মঙ্গলবার তাদের শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য বরিশালে পাঠানো হয়েছিলো।

জেলার নাজিরপুর উপজেলা বাদে বাকি ছয়টি উপজেলায়ই করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। এখন পর্যন্ত জেলায় মোট আক্রান্ত হয়েছে ৩১ জন এবং সুস্থ হয়েছেন মাত্র ৪ জন। তবে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত পিরোজপুর সদর ও ভান্ডারিয়া উপজেলায়। বর্তমানে পিরোজপুর সদর উপজেলায় ১২ জন, ভান্ডারিয়া উপজেলায় ৯ জন, মঠবাড়িয়া উপজেলায় ৫ জন, ইন্দুরকানি উপজেলায় ৩ জন এবং নেছারাবাদ ও কাউখালী উপজেলায় একজন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছে। আক্রান্তদের সকলেই বাড়িতে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

গত ১৩ই এপ্রিল সর্বপ্রথম পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত এক ব্যক্তি শনাক্ত হলেও, মে মাসের ৮ তারিখ থেকে পিরোজপুরে বেড়েই চলেছে আক্রান্তদের সংখ্যা। ফলে জেলার মানুষের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। তবে আক্রান্তদের সকলেই ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ এবং গাজীপুর থেকে পিরোজপুরে এসেছে।

নিয়মিত চাকরির আপডেট পেতে আমাদের গ্রুপে জয়েন করুন

তবে গত ১০ই মে থেকে পিরোজপুরের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো খুলে দেওয়ায় শহরে বেড়েছে মানুষের ব্যাপক জনসমাগম। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া অনেকেই পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বাজারে ভিড় করছেন। তবে শহরের মধ্যে জনসমাগম কমাতে ব্যস্ততম রাস্তাগুলো বন্ধ করে দিয়েছে পুলিশ। ফলে শহরের মধ্যে কোন প্রকার যানবাহন ঢুকতে পারছে না। এছাড়া দুই শিফটে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখলেও, বাজারগুলোতে কোনভাবেই থামানো যাচ্ছে না জনসমাগম।

Check Also

Government has not taken any decision to hold HSC exams’

HSC and equivalent examinations were supposed to start from April 1. Due to the Corona …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *