Expatriates including unemployed youth will also get loan assistance: PM

Prime Minister Sheikh Hasina has said that the government is working with the aim of handling the situation so that no one in the country dies due to corona virus. He was speaking at the inauguration of a Tk 1,250 crore cash assistance program from Ganobhaban on Thursday (May 14th) morning for 5 million extremely poor families who have lost their jobs in the country’s disaster situation.

LIKE OUR FACEBOOK PAGE

বেকার যুবকসহ প্রবাসীরাও পাবেন ঋণ সহায়তা: প্রধানমন্ত্রী

বেকার যুবকসহ প্রবাসীরাও পাবেন ঋণ সহায়তা: প্রধানমন্ত্রী

আরও পড়ুন

দেশের কোনো মানুষই যাতে করোনা ভাইরাসের কারণে না খেয়ে মারা যায়, সেই পরিস্থিতি সামাল দেয়ার লক্ষ্য নিয়েই সরকার কাজ করছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।তিনি বলেছেন, সাধ্যমতো চেষ্টা করা হচ্ছে দেশের সবার জন্য।

বৃহস্পতিবার( ১৪ মে) সকালে, গণভবন থেকে দেশের এই দুর্যোগ পরিস্থিতিতে কর্মহীন হয়ে পড়া ৫০ লাখ হতদরিদ্র পরিবারের জন্য বরাদ্দ করা ১ হাজার ২৫০ কোটি টাকা নগদ সহায়তা কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।

মোবাইল ব্যাংকিং সুবিধার আওতায় দেশের ২ কোটি মানুষের কাছে পর্যায়ক্রমে পৌঁছে যাবে পরিবার প্রতি ২ হাজার ৫০০ টাকা। করোনা পরিস্থিতির কারণে দেশে কর্মসংস্থানের অভাবে যাতে বেকার যুবকরা সমস্যায় না পড়েন। সেদিকে লক্ষ্য রেখে সরকার ব্যবস্থা নিচ্ছে বলে ভিডিও কনফারেন্সে জানান প্রধানমন্ত্রী।

সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দিয়ে তিনি বলেন, ‘কর্মসংস্থান ব্যাংকে আরো ২ হাজার কোটি টাকা আমানত দিয়ে দেবো, ওখান থেকে আমাদের যুবক-শ্রেণি যাতে বেকার হয়ে ঘুরে না বেড়ায় সেজন্য তারা ব্যাংক থেকে ঋণ নিতে পারবে। নিজেরা ব্যবসা বাণিজ্য করতে পারবে।’

এছাড়াও যারা প্রবাসী, তারাই কিন্তু আমাদের রেমিট্যান্স পাঠায়। কাজেই তাদের কল্যাণ্যে প্রবাসী ক্যলাণ ব্যাংক গড়ে তোলা হয়েছে। সেই ব্যাংকেও আরো টাকা আমরা দিয়ে দেবো। অতিরিক্ত আরো ৫’শ কোটি টাকার তহবিল সেখানে দেয়া হবে।

কেননা, এখন প্রবাসে কাজের পরিধিটা সীমিত হয়ে গেছে। সেখানেও বহু মানুষ কাজ হারাচ্ছে। অনেকে কোনো উপায় না দেখে ফিরে আসছেন। তারা তো আমার দেশের নাগরিক। এখানে এসে তারা যাতে কিছু না কিছু করে খেতে পারে। সেজন্য তাদের সেই কর্মসংস্থানের ব্যবস্থাটা আমরা করে দিচ্ছি। ঐ ব্যাংকের তহবিলে আরো ৫’শ কোটি টাকা আমরা দিয়ে দিচ্ছি।

ভয়াবহ এই মহামারী রোধে সরকারের নেয়া বিভিন্ন কর্মসূচিগুলো আবারো দেশবাসীর উদ্দেশ্যে তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, জাতির পিতার জন্মশত বার্ষিকীর বছরব্যাপী আয়োজন করা কথা ছিল। কিন্তু করোনা ভাইারাসের এই দুঃসহ পরিস্থিতির জণ্য, জনগণের স্বাস্থ্য সুরক্ষার কথা ভেবে সব কর্মসূচি আমরা স্থগিত করেছি। কিন্তু এ সময়ে, যাতে এই খাত থেকে বরাদ্দকৃত অর্থ জনগণের জন্য ব্যবহার করা যায়। সেই উদ্যোগও ক্রমান্বয়ে বাস্তবায়িত হচ্ছে বলে জানান বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা।

Check Also

Government has not taken any decision to hold HSC exams’

HSC and equivalent examinations were supposed to start from April 1. Due to the Corona …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *